মাসিকের সময় চলাচল





মাসিক হলে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের থেকে আলাদা থাকতে হবে।
কিন্তু প্রকৃতপক্ষে মাসিক একটি স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া। নিয়মিত মাসিক সুস্থতার লক্ষণ। প্রতিটি প্রাপ্তবয়স্ক নারীর প্রতি মাসে মাসিক হয়। কাজেই, মাসিকের সময় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত করার কোন অর্থ নেই।কিশোরী মেয়েদের ক্ষেত্রে অনেক সময়ই দেখা যায় মাসিকের কারণে স্কুলে যাওয়া বা খেলাধুলার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। এমনকি তাদের বাড়ির বাইরে যেতেও নিরুৎসাহিত করা হয়।কিন্তু এ ধরনের নিষেধাজ্ঞার কোন ভিত্তি নেই। মাসিকে চলাফেরা ঝুঁকিপূর্ণ তো নয়ই, বরং তা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।কিছু কিছু প্রাত্যহিক শারীরিক সচলতা বরং মাসিকের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। যেমন, হাঁটা ও সাঁতার।
মাসিকের আগে আগে নিয়ম করে হাঁটলে ও সাঁতার কাটলে তলপেটসহ শরীরের বেশির ভাগ অংশের পেশী সংকুচিত ও প্রসারিত হয়। ফলে জরায়ুর দেয়াল থেকে ঋতুরক্তের যে আস্তর ভেঙ্গে আসে তা সহজ হয় ও ব্যথা কমে যায়।এমনকি মাসিকের সময় যথাযথ ব্যবস্থা নিয়ে সাইকেল চালানোও যেতে পারে। তবে ব্যথা বেশি থাকলে বা রক্তপাত বেশি হলে তা না করাই ভালো।